হরতালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ

হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

রবিবার বেলা ১১টার পর থেকে জেলা সদর, আশুগঞ্জ, সরাইলের একাধিক স্থানে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বেলা ১১টার পর জেলা পরিষদ ভবনে আগুন দেওয়া হয়। নিচতলার অনেক কক্ষে আগুন দেওয়ার পর এসির বিস্ফোরণ হয়।

এছাড়া সদর উপজেলা ভূমি অফিস, সুরসম্রাট আলাউদ্দিন সংগীতাঙ্গন ও পৌরসভায় ভাঙচুর ও আগুন দেওয়া হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মূল সড়কের অনেক স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি ফেলে রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ট্রেন চলাচলে বাধা দিতে ড্রেন থেকে কংক্রিটের স্ল্যাব উঠিয়ে রেললাইনে রাখা হয়েছে। রেললাইনের ক্ল্যাম খুলে ফেলা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ এবং হরতালের প্রতিবাদে দুপুর ১২টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হামলায় হতাহতের প্রতিবাদে রবিবার সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয় হেফাজতে ইসলাম।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর ঘিরে প্রতিবাদে নেমে পুলিশ ও সরকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন ইসলামি দলগুলোর নেতাকর্মীরা। জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকায় সংঘর্ষ শুরু হয়। এ ঘটনায় অর্ধশতাধিক আহত হন।

এ ঘটনার প্রতিবাদে চট্টগ্রামের হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশের সঙ্গে হেফাজত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। এতে হাটহাজারীতে চারজন আর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একজন নিহত হন।

শনিবার বিকেলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজিবি ও পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে হেফাজত নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে কমপক্ষে পাঁচজন নিহত হন।


আরও পড়ুন