চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আহত ২০

চট্টগ্রাম নগরীতে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। আজ সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কাজীর দেউড়ি এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নগর মহিলা দলের সভাপতি ও সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনিহসহ অন্তত ১৫ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম পুলিশের উপকমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, কাজীর দেউড়িতে বিএনপি কার্যালয় নসিমন ভবনের সামনে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের ওপর ইট-পাটকেল ছোড়া হয়, তাদের ওপর হামলা করা হয় এবং রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। এতে পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ অ্যাকশনে যায় এবং বিএনপির ১৫ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর আগে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে।

চট্টগ্রাম মহানগর (দক্ষিণ) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পলাশ কান্তি নাথ জানান, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি বিক্ষোভ মিছিলটি বের করে। এ সময়, নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে বিএনপি কর্মীরা সড়ক অবরোধ করলে, পুলিশ লাঠিচার্জ করে সরিয়ে দেয়।

পলাশ কান্তি নাথ জানান, বিএনপি কর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা করলে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান বলেন, ‘বিকেল ৩টার দিকে মিছিল নিয়ে কাজীর দেউড়িতে দলীয় কার্যালয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ বিনা উসকানিতে মিছিলে গুলিবর্ষণ শুরু করে। এতে আমাদের অন্তত ২০ নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হন। তাদের নগরের কয়েকটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’

বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম অভিযোগ করেন, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমরা বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছিলাম। সেখানে পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করে।

স্বাধীনতা দিবসে ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ ও পুলিশের হামলা এবং হত্যার ঘটনার প্রতিবাদে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল-চট্টগ্রাম মহানগর শাখার যৌথ উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়।


আরও পড়ুন