আধাঘণ্টায় পৌনে দুইশ কোটি টাকার লেনদেন

সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার (১৯ এপ্রিল) লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে মূল্য সূচকের বেশ অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। তবে লেনদেনে বেশ ভালো গতি দেখা যাচ্ছে।

প্রথম আধাঘণ্টার লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচকের একাধিকবার উত্থান-পতন হয়েছে।

সূচকে অস্থিরতা দেখা দিলেও এই সময় পর্যন্ত লেনদেনে অংশ নেয়া যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে, বেড়েছে তার থেকে বেশি। তবে আধাঘণ্টার লেনদেনেই ডিএসইতে প্রায় দুই’শ কোটি টাকার লেনদেন হয়ে গেছে।

এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার মধ্য দিয়ে। এতে প্রথম দুই মিনিটের লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে প্রধান মূল্য সূচক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে যায়।

তবে এরপর বেশকিছু প্রতিষ্ঠানের দরপতন হয়। এতে ঋণাত্মক হয়ে পড়ে সূচক। ১০টা ১৫ মিনিটে ডিএসইর প্রধান সূচক ৬ পয়েন্ট পড়ে যায়। অবশ্য এরপর আবার ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে সূচক। প্রথম ২০ মিনিটের লেনদেনে সূচকটি বাড়ে ৬ পয়েন্ট।

প্রথম ২০ মিনিটের লেনদেনে সূচকে অস্থিরতা দেখা দিলেও পরের ১০ মিনিট সূচক টানা বেড়েছে। সেই সঙ্গে পতনের তালিকা বেশকিছু প্রতিষ্ঠান দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৩ পয়েন্ট বেড়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ৫ পয়েন্ট বেড়েছে। আর ডিএসই-৩০ সূচক বেড়েছে ৯ পয়েন্ট।

এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১১৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১০০টির। আর ৫৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৬৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৬১ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে ৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেওয়া ৭৯ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৮টির, কমেছে ২৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪টির।


আরও পড়ুন