কাজের টানে গাদাগাদি করেই ফিরছে মানুষ

ঈদ শেষ, নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা মানুষ এখন ফিরছেন কাজের টানে রাজধানীতে। ঈদ যাত্রায় যে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুট এতদিন খবরের শিরোনামে ছিল, আগামী কয়েকদিনও থাকবে তা। তবে, ঈদ ফেরত যাত্রা নিয়ে। আজ সোমবার মুন্সিগঞ্জের এই নৌরুট দিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে দক্ষিণবঙ্গের মানুষ। সকাল থেকে যে কয়টি ফেরি এখন পর্যন্ত ঘাটে ভিড়েছে, প্রতিটিতেই বেশ ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। একইসঙ্গে এসব ফেরিতে জরুরি, যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী যানবাহনও পার হচ্ছে।

মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে ফেরিতে চড়ে শিমুলিয়া ঘাটে আসছে হাজার হাজার মানুষ। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় শিমুলিয়া ঘাটে এসে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে যাত্রীরা। যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছাতে হচ্ছে ভেঙে ভেঙে। এতে চরম ভোগান্তির পাশাপাশি গুণতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়াও।

কর্তৃপক্ষ বলছে, শিমুলিয়াঘাটে আসা প্রতিটি ফেরিতে যানবাহনের সঙ্গে যাত্রীদের ভিড় উল্লেখযোগ্য। তাদের অভিযোগ, যাত্রীরা ফিরছেন, তবে তারা কোনো স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।

এদিকে রাজধানীতে গণপরিবহন বন্ধ। তাই যাত্রীদের নিজ নিজ গন্তব্যে ফিরতে হচ্ছে সিএনজি, অটোরিকশা, মোটরসাইকেলে করে ভেঙে ভেঙে।

শিমুলিয়া ফেরিঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) প্রফুল্ল চৌহান বলেন, বাংলাবাজার ঘাট থেকে আজও প্রচুর যাত্রী এসেছেন ঘাটে। পাশাপাশি জরুরি ও ব্যক্তিগত গাড়িও পার করা হচ্ছে। সকাল থেকে নৌরুটে ১৮টি ফেরি চালু রয়েছে। কিছু যাত্রী শিমুলিয়াঘাট থেকে ফেরিযোগে দক্ষিণবঙ্গে যাচ্ছে।

মাওয়া ট্রাফিক পুলিশের টিআই হিলাল উদ্দিন জানান, বাংলাবাজার ঘাট থেকে ফেরিগুলো যাত্রী ও পরিবহন নিয়ে নিয়মিত আসছে। ফেরিতে অনেক যাত্রী আসায় বোঝা যায় ওপারে যাত্রীর চাপ আছে। শিমুলিয়ায় এসে যাত্রীরা গাড়িতে চড়ে গন্তব্যে চলে যাচ্ছে। তাই শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী চাপ বোঝা যায় না। বলা যায় দক্ষিণবঙ্গমুখী যাত্রীর চাপ কমছে।


আরও পড়ুন