মেসিদের থেকে পয়েন্ট কেড়ে নিল কলম্বিয়া

প্রথমার্ধে দুর্দান্ত ফুটবল খেলে আর্জেন্টিনা। প্রথম আট মিনিটে কলম্বিয়ার জালে দু’বার বল জড়িয়ে ম্যাচের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণে নেয় তারা। তবে দ্বিতীয়ার্ধে বদলে যায় কলম্বিয়া। শুরুতে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমানোর পর ইনজুর সময়ের চতুর্থ মিনিটে দুর্দান্ত এক গোলে আর্জেন্টিনার থেকে এক পয়েন্ট আদায় করে নেয় স্বাগতিকরা।

আজ বুধবার কলম্বিয়ার এস্তাদিও মেত্রোপলিতানোয় ম্যাচটি ২-২ ড্র হয়। আর্জেন্টিনার হয়ে একটি করে গোল করেন গত ম্যাচেই চিলি বিপক্ষে অভিষিক্ত ক্রিস্টিয়ানো রোমেরো ও লিনার্দো পেরেদেস। কলম্বিয়ার হয়ে ব্যবধান কমান লুইস ফার্নান্দো ও দলকে সমতায় ফেরান বোরহা।

ম্যাচের শুরুটে হোঁচট খায় আর্জেন্টিনা। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেস। কোপা আমেরিকা শুরুর কদিন আগে দলের জন্য বড় দুঃসংবাদ হতে পারে এটি।

তৃতীয় মিনিটে রোমেরোর গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ডান দিক থেকে রদ্রিগো দে পলের দারুণ ফ্রি কিকে লাফিয়ে হেডে দলকে এগিয়ে নেন তিনি। পাঁচ মিনিট পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করে পেরেদেস। ডি-বক্সে মেসি শট নিতে ব্যর্থ হওয়ার পরও বিপদমুক্ত করতে পারেনি কলম্বিয়া। প্রতিপক্ষের দুই জনের চোখ ফাঁকি দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন পারেদেস। এরপর লাউতারো মার্তিনেসের বাড়ানো ফিরতি পাস ধরে কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন পিএসজির হয়ে খেলা এই মিডফিল্ডার।

প্রথমার্ধজুড়ে দারুণ খেলতে থাকে আর্জেন্টিনা। তবে প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণের কারণে খুব একটা আক্রমণে পেরে উঠেননি মেসি, মার্তিনেসরা। অন্যদিকে আর্জেন্টিনার রক্ষণেও বেশ কয়েকবার পরীক্ষা নেয় কলম্বিয়া। তবে কেউ গোল করতে না পারায় দুই গোলে এগিয়ে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

বিরতি পর পেনাল্টি থেকে ব্যবধান কমান লুইস মুরিয়েল। ৫১তম ডি-বক্সে মাতেউস উরিবের মুখে নিকোলাস ওতামেন্দি আঘাত করলে স্পট কিকের বাঁশি বাজান রেফারি। হলুদ কার্ডও দেখেন আর্জেন্টাইন এই ডিফেন্ডার। ব্যবধান কমলেও আক্রমণ ধরে রাখে আর্জেন্টিনা। বেশ কয়েকবার সুযোগ সৃষ্টি করেও গোলমুখে বল রাখতে পারেনি তারা।

ম্যাচের ইনজুরি সময়ের চতুর্থ মিনিটে আর্জেন্টিনার মুখ থেকে জয় কেড়ে নেওয়া গোলটি করেন বোরহা। ডান দিক থেকে হুয়ান কুয়াদরাদোর ক্রসে হেডে লক্ষ্যভেদ করেন বিরতির পর মাঠে নামা এই স্ট্রাইকার। ছয় ম্যাচে তিনটি জয় ও তিনটি ড্রয়ে দ্বিতীয়স্থানে থাকা আর্জেন্টিনার পয়েন্ট ১২।


আরও পড়ুন