বগুড়ায় বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৩

বগুড়ার শিবগঞ্জে যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নানা-নানি ও দুই বছরের নাতি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুই বছরের ওই শিশুর বাবা-মাসহ অটোরিকশা ও বাসের কমপক্ষে ১৫ জন যাত্রী। দুর্ঘটনার পর পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় গুরুতর আহত ১০ জনকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ শনিবার সকাল সাড়ে ৭টায় বগুড়া-রংপুর মহাসড়কে শিবগঞ্জ উপজেলার হাতীবান্ধা নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত তিনজন হলেন গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় জুমারবাড়ি এলাকার আশরাফ আলী (৫০), তার স্ত্রী পারুল বেগম (৪২) ও তাদের দুই মাস বয়সী নাতি রেজওয়ান। এ ঘটনায় তাদের মেয়ে গোলাপী বেগম ও জামাই রাশেদুর ইসলাম আহত হয়। এরা সবাই অটোরিকশার যাত্রী ছিলেন।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ইসলাম জানান, গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ী এলাকার বাসিন্দা আশরাফ আলী সিএনজিচালিত অটোরিকশা নিয়ে মেয়ে-জামাই ও তাদের দুই মাস বয়সী নাতিকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য বগুড়া শহরে যাচ্ছিলেন। এ সময় আহসান পরিবহণ নামের একটি বাস ঢাকা থেকে রংপুর যাবার পথে শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থানের হাতীবান্ধা নামক স্থানে বিপরীত দিক থেকে আসা সিএনজি থ্রি-হুইলারকে মুখোমুখি ধাক্কা দেয়। এতে বাসটি রাস্তার পাশে উল্টে যায়। বাসের ধাক্কায় সিএনজি থ্রি হুইলার দুমড়ে মুচড়ে যায়।

সিএনজির যাত্রী আশরাফ আলী ও তার স্ত্রী পারুল বেগম ঘটনাস্থলে মারা যান। এ ছাড়া তাদের নাতি আহত হলে তাকে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিৎিসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ওসি আরও জানান, এই ঘটনায় বাসের ১৫ জন যাত্রী আহত হয়েছেন। আহতদের বেশ কয়েকজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। অটোরিকশার চালকসহ আরেক যাত্রী বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ বাস ও সিএনজি আটক করেছে। বাসের চালক পালিয়ে যান।


আরও পড়ুন