টি-টোয়েন্টি সিরিজে সমতায় ফিরলো জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশের বিপেক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পেয়েছে জিম্বাবুয়ে। প্রথম ম্যাচে টাইগারদের কাছে হেরে গেলেও দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় স্বাগতিকরা। সফরকারীদের ২৩ রানের ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজ ১-১তে সমতায় ফেরালো সিকান্দার রাজারা।

আজ শুক্রবার হারারেতে টসে জিতে ব্যাট করতে এসে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রান তোলে জিম্বাবুয়ে। জবাবে ব্যাটিং ব্যর্থতায় নির্ধারিত ওভারের এক বল বাকি থাকতেই সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রানে থামে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

টসে জিতে ব্যাট করতে এসে শুরুটা ভালো হয়নি জিম্বাবুয়ের। মাত্র ১৫ রানের মাথায় তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে সাজঘরে ফেরান শেখ মেহেদী হাসান। উইকেট হারিয়ে আগ্রাসী ব্যাটিং শুরু করেন ওপেনার ওয়েসলি মাধেভেরে ও রেগিস চাকাবা। ২১ বলে ২৭ রানে জুটি গড়লেও সাকিব আল হাসানের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন চাকাবা।

পাওয়ার প্লেতে দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়লেও ওপেনার মাধেভেরে ও ডিয়ন মায়ার্সের দারুণজুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় জিম্বাবুয়ে। ৫৭ রানের এই জুটি ভাঙেন পেসার শরিফুল ইসলাম। ব্যাট হাতে এক পাশ আগলে রেখে রান তুলতে থাকা মাধেভেরেকে ফেরান শরিফুল। ৫৭ বলে তিন ছয় ও পাঁচ চারে ৭৩ রান করে ফেরেন এই ওপেনার।

শেষের দিকে রায়ান বার্লের ১৯ বলে ৩৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রান তোলে স্বাগতিকরা। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট শিকার করেন পেসার শরিফুল ইসলাম।

লক্ষ্য তাড়া করতে এসে শুরুতেই হোঁচট খায় সফরকারীরা। মাত্র ১৭ রান তুলতেই ফেরেন দুই ওপেনার নাঈম শেখ ও সৌম্য সরকার। পাওয়ার প্লের পরের ওভারেই সাকিব আল হাসানকে ফেরান ওয়েলিংটন মাসাকাদজা। খানিক পরই মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও শেখ মেহেদী হাসানকে ফেরান এই পেসার। একেরপর এক উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়া দলকে খুব একটা সহযোগিতা করতে পারেননি নুরুল হাসান সোহান। তিনিও ফেরেন মাত্র ৯ রান করে চাতারার শিকার হয়ে।

মাঝের দিকে অভিষিক্ত শামীম পাটোয়ারিকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন আফিফ হোসেন ধ্রুব। দুই জনের গড়া ৪১ রানের জুটিতে আঘাতহানেন জংউই। ১৩ বলে তিন চার ও তিন ছয়ে ২৯ করে ফেরেন শামীম। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে ২৪ করে ফেরেন আফিফ। শেষের দিকে আর কেউই উল্লেখযোগ্য কিছু করতে পারেনি। নির্ধারিত ওভারের এক বল বাকি থাকতেই সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রানে থামে বাংলাদেশ।


আরও পড়ুন