জীবিত থেকেও ২০১৬ সাল থেকে মৃত তিনি!

জীবিত থেকেও ভোটার তালিকায় মৃত আছিয়া খাতুন। বয়স্ক ভাতার আবেদন করতে গিয়ে বিষয়টি ধরা পড়ে। ঘটনাটি কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার গড়মাছুয়া নামাপাড়া গ্রামের।

বয়স্ক ভাতার আবেদন করতে সম্প্রতি তিনি কম্পিউটারের দোকানে এসেছিলেন। জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তরের অনলাইলে আবেদন চেষ্টা করেন। কিন্তু বারবার চেষ্টা করেও দেখা যায়, অনলাইনে আবেদন নিচ্ছে না। পরে উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে জানতে পারেন, ২০১৬ সাল থেকে তিনি মৃত।

 

আছিয়া খাতুনের জাতীয় পরিচয়পত্রে তার জন্ম তারিখ ৮ জুলাই, ১৯৪৮। এনআইডি নং-৪৮১২৭৮১৩৯১০৯৯। স্বামী মৃত হাফিজ উদ্দিন, স্থায়ী ঠিকানা, গ্রাম গড়মাছুয়া, (নামাপাড়া), ডাকঘর : মেছেরা-২৩২০, হোসেনপুর, কিশোরগঞ্জ।

আছিয়া খাতুন আক্ষেপ করে বলেন, আমার বয়স ৭৩ বছর হলেও নির্বাচন অফিসের ভুলের কারণে বয়স্কভাতা থেকে বঞ্চিত হতে যাচ্ছি। তার পুত্র আবদুস সালাম বলেন, আমার মা বেঁচে থাকা সত্ত্বেও নির্বাচন অফিস কী করে তাকে মৃত দেখাল?

অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শিহাব উদ্দিন জানান, ভুক্তভোগী নারী ভোটার তালিকায় নতুন করে নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানের পরিচয়পত্র ও এনআইডি কার্ডের ফটোকপি দিয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসে আবেদন করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও পড়ুন