উরুগুয়েকে উড়িয়ে দিল আর্জেন্টিনা

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে উরুগুয়েকে উড়িয়ে দিয়েছে আর্জেন্টিনা। আগের ম্যাচে প্যারাগুয়ের রক্ষণ ভাঙতে না পারলেও এই দিন সামনে থেকে আলবিসেলেস্তাদের নেতৃত্ব দিয়েছেন লিওনেল মিস। গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের গোলে প্রতিপক্ষের ভিত নাড়িয়ে দিলেন। আর তাতেই দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিলো কোচ লিওনেল স্কোলানির দল।

সোমবার ভোরে ঘরের মাঠ বুয়েনস আইরেসে ৩-০ গোলে জিতেছে আর্জেন্টিনা। শুরুতে মেসি দলকে এগিয়ে যাওয়ার আর্জেন্টিনার ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রদ্রিগো দে পল। দ্বিতীয়ার্ধে আরও একবার বল জালে জড়িয়ে ব্যবধানে বাড়ান লাউতারো মার্তিনেস। ৯ বছর পর এই প্রথম উরুগুয়ের জালে তিনবার বল পাঠাতে পারল আর্জেন্টিনা।

রিভার প্লেটের মাঠ এল মনুমেন্তালে ৬২ শতাংশ সময় বল দখলে রাখা আর্জেন্টিনা গোলের জন্য শট নেয় ২৩টি। এর ১০টি ছিল লক্ষ্যে। দারুণ কিছু সেভে ব্যবধান আরও বড় হতে দেননি উরুগুয়ের গোলরক্ষক ফের্নান্দো মুসলেরা। উরুগুয়ের ১০ শটের ছয়টি ছিল লক্ষ্যে। শুরুতে দারুণ দুটি সেভে আর্জেন্টিনাকে রক্ষা করেন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেস।

এই নিয়ে দশ ম্যাচে ছয় জয় ও চার ড্রয়ে ২২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়স্থানে আর্জেন্টিনা। সমান ব্যবধানে ৯ জয় ও এক ড্রয়ে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল।

পঞ্চম মিনিটে আক্রমণ বাড়ায় আর্জেন্টিনা। লিওনেল মেসির ক্রস অল্পের জন্য খুঁজে পায়নি নিকোলাস তাগলিফিয়াকো ও লেয়ান্দ্রো পারেদেসকে। পরের মিনিটে পাল্টা আক্রমণ বাড়ায় উরুগুয়ে। প্রস্তুত থাকা আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ ঝাঁপিয়ে ঠেকান লুইস সুয়ারেস ও ফেদে ভালভেরদের শট।

২১তম মিনিটে দারুণ সুযোগ পেয়ে যান সুয়ারেস। নাহিতান নানদেসের ক্রসে মাতিয়াস ভিনার ভলিতে বল খুঁজে পান অরক্ষিত এই স্ট্রাইকারকে। তার বাঁ পায়ের হাফ ভলি দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দেন মার্টিনেজ। পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে স্বাগতিক খেলোয়াড় দে পলের দারুণ ক্রসে খুব কাছ থেকে স্লাইড দেন লাউতারো মার্তিনেস। কিন্তু তা লক্ষ্যে থাকেনি। দুই মিনিট পর দুরূহ কোণ থেকে সুয়ারেসের শট ব্যর্থ হয় গোল পোস্টে লেগে।

৩৮তম মিনিটে উরুগুয়ের রক্ষণ ভাঙেন মেসি। পিএসজির এই ফরোয়ার্ডের উঁচু করে বাড়ানো বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি নিকোলাস গনসালেস। খানিকটা এগিয়ে এসে বলের নাগাল পাননি উরুগুয়ে গোলরক্ষকও। সবাইকে ফাঁকি দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। এরই মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৮০তম গোলের দেখা পান মেসি।

ছয় মিনিটের ব্যবধানে লিড দ্বিগুণ করে আলবিসেলেস্তারা। মেসির বাড়ানো বল এক জনের গায়ে লাগলে পেয়ে যান লাউতারো মার্তিনেস। তিনি ঠিক মতো শট নিতে পারেননি। কেউ ক্লিয়ার করার আগেই ছুটে গিয়ে আলগা বল জালে পাঠান দে পল। দেশের হয়ে এটি তার দ্বিতীয় গোল। বিরতির পর এদিনসন কাভানিকে নামান উরুগুয়ে কোচ।

পিছিয়ে পড়ার পর ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে উঠে উরুগুয়ে। অন্যদিকে এগিয়ে থাকায় রক্ষণে শক্তি বাড়ায় আর্জেন্টিনা। আক্রমণ প্রতি-আক্রমণে মাঝে মধ্যেই ৬২তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ান মার্তিনেজ। আবারও মেসির বাড়ানো বল পেয়ে ডি বক্সে ক্রস করেন দে পল। স্লাইড করেও নাগাল পাননি লো সেলসো। দূরের পোস্টে অরক্ষিত লাউতারো মার্তিনেস বাকিটা সারেন অনায়াসে। কিছুই করার ছিল না মুসলেরার। এরপর আর কোনো গোলের দেখা পায়নি কেউই।


আরও পড়ুন