সার্চ কমিটির মাধ্যমেই হবে নির্বাচন কমিশন

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আগামী নির্বাচন কমিশন সার্চ কমিটির মাধ্যমেই হবে। সার্চ কমিটিও আইনের কাছাকাছি। এবার এই সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে। এর পর আইনে যাওয়া হবে। কারণ ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আইন করা সম্ভব নয়।

রোববার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে আর কোনো তর্কের অবকাশ নেই। কারণ এ নিয়ে সুপ্রিমকোর্টের রায় আছে। আর সুপ্রিমকোর্টের রায় যখন মানা হয়, তখন নিজেদের গর্বিত মনে হয়।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি সরকারের হাতে নেই উল্লেখ করে বলে আনিসুল হক বলেন, তার মামলা আদালতে বিচারাধীন। মামলায় যদি জয়ী হন, তা হলে তার স্থায়ী মুক্তি হবে।

বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িত নেপথ্যের মদতদাতাদের খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিশন গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান আইনমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কমিশন গঠনের বিষয়ে উদ্যোগও ইতোমধ্যে নেয়া হয়েছে। এই কমিশন হচ্ছে বিকৃত ইতিহাসকে ফেলে দিয়ে সত্য ইতিহাসকে সঠিক পথে চালিত করা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সেটি জানানো।

উচ্চ আদালতে বিচারপতি নিয়োগে অচিরেই আইন করা হবে বলেও জানান আইনমন্ত্রী।

বিচার বিভাগ পৃথককরণসংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, নির্বাহী বিভাগের প্রভাব থেকে বিচার বিভাগ অনেকটাই মুক্ত।


আরও পড়ুন