ভোটে হেরে রেললাইনে আগুন দিয়ে বিক্ষোভ

কিশোরগঞ্জের যশোদলে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে রাস্তা অবরোধ ও রেললাইনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেছেন পরাজিত আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থকরা।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বড়ইতলা এলাকায় কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিকুল ইসলাম বাবুলের সমর্থকরা বিক্ষোভ করেন। কিছু সময়ের জন্য কিশোরগঞ্জ-ঢাকা রেললাইনেও আগুন দেন তারা।

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, নির্বাচনে ভোট কারচুপি করে নৌকাকে পরাজিত করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে যশোদলসহ সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ১১ ইউনিয়নে মাত্র ৪টিতে জয়ী হন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। এছাড়া ৪টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী, ১টিতে জাতীয় পার্টি, ১টিতে বিএনপির সমর্থক জয়ী হন। স্থগিত আরেকটিতে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন।

এরমধ্যে বিন্নাটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শফিকুল ইসলাম (আনারস), বৌলাই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত আওলাদ হোসেন (নৌকা), চৌদ্দশত ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থক আতাহার আলী (চশমা), দানাপাটুলি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মাসুদ মিয়া (অটোরিকশা), যশোদল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ইমতিয়াজ সুলতান রাজন (চশমা), কর্শা কড়িয়াইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত বদর উদ্দিন (নৌকা) জয়ী হয়েছেন।

এছাড়া মাইজখাপন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত আবুল কালাম আজাদ (নৌকা), মহিনন্দ ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি মনোনীত লিয়াকত আলী (লাঙল), রশিদাবাদ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জহিরুল ইসলাম (আনারস), মারিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত মুজিবুর রহমান (নৌকা) ও লতিবাবাদ ইউনিয়নে ১টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত অবস্থায় এগিয়ে রয়েছেন বিএনপি সমর্থক আব্দুর রাজ্জাক (চশমা)।


আরও পড়ুন