কুলিয়ারচরে নির্বাচনী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত ১

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে নির্বাচনী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ দেলোয়ার হোসেন মারা গেছেন। মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) সকালে ঢাকার হেলথ কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত দেলোয়ার হোসেন উপজেলার গোবরিয়া নামাকান্দা গ্রামের ইব্রাহিম মিয়ার ছেলে।

নিহত দেলোয়ার ছাড়াও একই গ্রামের আনোয়ার হোসেন, সাব্বির মিয়া ও মো. রানা নামে আরো তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তারা বর্তমানে বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

এর আগে গত রোববার (২৮ নভেম্বর) ভোটগ্রহণ চলাকালে দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকার প্রার্থী মোহাম্মদ এনামুল হক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলামের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষের সময় দেলোয়ার হোসেনসহ চারজন গুলিবিদ্ধ হন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার উত্তর গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও দক্ষিণ গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে একাধিকবার নৌকার প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দুপুর ১টার দিকে দক্ষিণ গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় পুলিশ সংঘর্ষ থামানোর চেষ্টা করে। একপর্যায়ে সেখানে গুলির ঘটনা ঘটে। এতে দেলোয়ার, আনোয়ার হোসেন, সাব্বির মিয়া ও মো. রানা গুলিবিদ্ধ হন। পরে দেলোয়ারকে উদ্ধার করে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর সেখান থেকে তাকে উন্নত চিকিৎসার ঢাকার হেলথ কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়।

কুলিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ গোলাম মস্তোফা জানান, ঢাকায় চিকিৎসাধীন দেলোয়ার হোসেনের মৃত্যুর খবর তারা শুনেছেন। তবে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন কি না, কিংবা কার ছোড়া গুলিতে মারা গেছেন—এ বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।


আরও পড়ুন