নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান কারাগারে

প্রতারণা ও জালিয়াতির মামলায় নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ ও তার সহযোগী রিয়াজুল আলমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম এ আদেশ দেন। এর আগে গত ১০ জানুয়ারি আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

রাজধানীর খিলক্ষেত থানায় আশিয়ান ল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) মো. সাইফুল ইসলাম ভুঁইয়া মামলাটি দায়ের করেন। মামলাতে আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহর সহযোগী হিসেবে মো. রিয়াজুল আলম ও সেলিম মুন্সিসহ অজ্ঞাতনামা আরও ছয়-সাত জনকে আসামি করা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ক্যাম্পাস স্থাপনের জন্য আশিয়ান ল্যান্ডস ডেভেলপমেন্টের ৫ বিঘা জমি পছন্দ করে নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়। আলোচনাসাপেক্ষে ওই জমির মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৫০ কোটি টাকা। এর মধ্যে চেকের মাধ্যমে ৩০ কোটি টাকা পরিশোধ করে নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়। বাকি ২০ কোটি টাকা পরে পরিশোধ করার কথা বলা হয়।

মামলায় অভিযোগ আরও বলা হয়, পরবর্তী সময়ে নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহর কাছে বাকি ২০ টাকা চাইলে তিনি জানান, সব টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। পরে বাদী খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, ওই জমি ৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকায় কেনা হয়েছে বলে দেখানো হয়েছে সাফ কবলা দলিলে। আরও জানা যায়, দলিল সম্পাদনকারী মোহরার হিসেবে বাদীর অফিসের মোহরারের নাম থাকলেও তিনি এ ধরনের কোনো দলিল লেখার কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না বলে জানিয়েছেন।


আরও পড়ুন