মিশরে আযহারীদের ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত

গত কাল সোমবার (২ই এপ্রিল ২০২২) রাজধানী কায়রোস্থ ছকরে কুরাইশ মসজিদুত তাইসির হল রুমে অনুষ্ঠিত হল আল- আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশী ছাত্র সংগঠন আযহার ওয়েলফেয়ার সোসাইটি’র ঈদ পূর্ণমিলনী।

নীলনদের দ্বীপে বাংলাদেশী সব্জি বাগান’ তাজা এগ্রো’র সহযোগিতায় মিশরে বাংলাদেশ স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশনের সাবেক সভাপতি শরিফ উদ্দিন আব্দুল মান্নান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন মিশরে বাংলাদেশ দুতাবাসের রাষ্ট্রদূত মো. মনিরুল ইসলাম।

সন্ধ্যা ৭টায় আল- আযহার শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম, আবদুর রহমান ও সাজ্জাদ আকবর এর সঞ্চালনায় পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মুহাম্মাদ আবু সায়েম এবং ঈদের নাশীদ পরিবেশন করেন ওবায়দুল্লাহ আল-আহরার।

সভাপতির স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে মূল অনুষ্ঠানের সুচনা সূচনা হয়। ঈদের আনন্দ সবার মাঝে ভাগাভাগি করার প্রয়াসে সদস্যদের সরব উপস্থিতিতে মনে হচ্ছিলো এ যেন মিশরের বুকে এক টুকরো বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানের সাংস্কৃতিক পর্বে পর্যায়ক্রমে বাংলা, আরবী, উর্দূ এবং তুর্কি ভাষায় নাশীদ পরিবেশন সহ শরীয় সম্মত হাস্যরসে ভরপুর কিছু কৌতুক, ছোট্ট সোনামনিদের কোরআন তিলাওয়াত, নাশীদ আর ইংরেজীতে ছোট ছোট বাচ্চাদের ঈদের দিনের সুন্নাত সমূহ উপস্থাপন উপস্থিত দর্শকদের নজর কাড়ে।

এশার নামাজের পর অনুষ্ঠানের ২য় পর্বের শুরুতেই আযহার ওয়েলফেয়ার সোসাইটি’র উপদেষ্টা প্রতিনিধি জনাব শোয়াইব হোসাইন এর মূল্যবান আলোচনার পর

পবিত্র রমজান মাসে সোসাইটির উদ্যোগে আয়োজিত তিনজন আযহারী ডক্টর এর মাধ্যমে পরিচালিত ‘উসূলী মুহাদারা’ তাফসীর ওয়া উলূমুল কুরআন এবং তুর্কি ভাষা শিক্ষা কোর্সের সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

উসূলী মুহাদারার মুহাদির ড. হাসিবুর রহমান আযহারী ও তুর্কি ভাষা কোর্সের প্রশিক্ষক সাজ্জাদ আকবর সহ অংশ গ্রহণকারী সকলকেই সম্মাননা প্রশংসা পত্র প্রদান করা হয়।

প্রধান অতিথি রাষ্ট্রদূত মো. মনিরুল ইসলাম উপস্থিত সবাইকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। তার বক্তব্যে উঠে আসে মিশরে বাঙালী ছাত্রদের প্রশংসা, শিক্ষা-ভাবনা, নৈতিকতা ও বিদেশবিভুঁইয়ে অভিভাবকদের প্রতি বিশেষ দিক নির্দেশনা সহ জীবনের বিচিত্র বহু দিক।

রাষ্ট্রদূত, তাকে আমন্ত্রণ জাননোর জন্য আযহার ওয়েলফেয়ার সোসাইটি’র দায়িত্বশীলদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বলেন, আসলেই ছাত্রদের এই সমস্ত আয়োজন আমরা সব সময় উপভোগ করি এখানে এসে দেশীয় একটা সুধা পেলাম। চমৎকার এই আয়োজন গুলোকে সবসময় আমরা উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দিয়ে থাকি। যাতে প্রবাসীদের মধ্যে ও এই সমস্ত আচার অনুষ্ঠান চলমান থাকে। মিশরে বিভিন্ন

বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তোমাদের জন্য সবসময় দুতাবাসের দরজা খোলা। যে কোন সমস্যার সমাধানে আমরা তোমাদের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত।

সর্বশেষে সোসাইটির সভাপতির গুরুত্বপূর্ণ ও সমাপনী বক্তব্যের পর উপস্থিত সকলকে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী রাতের খাবারে আপ্যায়ন করা হয়।

অনুষ্ঠানে মিশরের আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয় সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও স্কুল পড়ুয়া ছাত্র/ছাত্রী, অভিভাবক, প্রবাসী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশী শিক্ষক সহ অন্তত তিনশত অতিথি উপস্থিত ছিলেন।


আরও পড়ুন