বেশি দামে তেল বিক্রি করতে মজুদ, ধরা পড়ে জরিমানা

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে এক ব্যবসায়ীর গোডাউন থেকে ২০০ লিটার সয়াবিন তেল উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (১১ মে) জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কিশোরগঞ্জ জেলা কার্যালয় অভিযান চালিয়ে এসব তেল উদ্ধার করে।

এ সময় অবৈধভাবে তেল মজুত রাখার দায়ে ওই ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পরে তেল নিতে আসা সাধারণ ক্রেতাদের কাছে সরকার নির্ধারিত মূল্যে উদ্ধার করা তেল বিক্রি করা হয়।

অভিযানে জেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এবং জেলা পুলিশ লাইনের একটি টিম সহযোগিতা করেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক হৃদয় রঞ্জন বণিক মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, অস্থিতিশীল তেলের বাজারের কারসাজি বন্ধ করতে হোসেনপুর বাজারের কলেজ রোডে অভিযান পরিচালনা করা হয়। সরকার নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, সয়াবিন (খোলা) তেল ১ লিটার ১৮০ টাকা, বোতল (সয়াবিন) ১ লিটার ১৯৮ টাকা, বোতল (সয়াবিন) ৫ লিটার ৯৮৫ টাকা এবং পাম সুপার ১ লিটার ১৭২ টাকা বিক্রির কথা।

কিন্তু হোসেনপুর বাজারের কলেজ রোডের মেসার্স বদরুল ইসলাম সরকার নির্ধারিত এ দামের চেয়ে বেশি দামে সয়াবিন তেল বিক্রি করছিল। এছাড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটির গোডাউনে অভিযান পরিচালনা করে সেখানে ২০০ লিটার সয়াবিন তেল মজুত পাওয়া যায়। ফলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। উদ্ধারকৃত তেলগুলো ক্রেতাদের কাছে সরকার নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে।


আরও পড়ুন