সীতাকুণ্ডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সরকারের পদত্যাগ দাবি বিএনপির

সীতাকুণ্ড বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার দায় নিয়ে সরকারের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সভায় এই দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে সমবেদনা এবং আহতদের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে এই দুর্ঘটনার জন্য সরকারকে দায় নিয়ে পদত্যাগ করা উচিত বলে সভা মনে করে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) দুপুরে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তিনি। সোমবার (৬ জুন) অনুষ্ঠিত বিএনপির স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভার সিদ্ধান্ত জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নাগরিকত্ব নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। তারেক রহমান জন্মগতভাবে বাংলাদেশি নাগরিক এবং অন্যকোনো দেশের নাগরিকত্বের জন্য আবেদনও করেননি।

রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আওয়ামী লীগ সরকারের চক্রান্তের ফলে তারেক রহমান নির্বাসিত অবস্থায় বৈধভাবেই যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন বলে দাবি করেন বিএনপির মহাসচিব। তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

ওবায়দুল কাদেরকে অসত্য তথ্য দেওয়ার কারণে তা প্রত্যাহার করে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া আহ্বান জানান ফখরুল।

গ্যাসসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে এবং মূল্য হ্রাসের দাবিতে আগামী ৯ জুন (বৃহস্পতিবার) ঢাকা মহানগরসহ সব মহানগরে, ১১ জুন (শনিবার) জেলা সদরে বিক্ষোভ ও ১৩ জুন (সোমবার) উপজেলা পর্যায়ে বিএনপি প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করবে বলে জানান মির্জা ফখরুল।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে প্রকাশিত ২০২১ সালের আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক প্রতিবেদনে বাংলাদেশের হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানসহ বিভিন্ন ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জোরপূর্বক উচ্ছেদ ও জমি দখল রোধে সরকারের কার্যকর ভূমিকার ব্যর্থতার অভিযোগ উত্থাপনে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। বিএনপি মনে করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রতিবেদনে প্রকাশিত তথ্য ও মন্তব্য প্রমাণিত হয়েছে বর্তমানের অনির্বাচিত আওয়ামী সরকার ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের স্বার্থ সংরক্ষণে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।

বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর আওয়ামী নির্যাতন ও সম্পত্তি দখল নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির মহাসচিব। তিনি বলেন, একমাত্র গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার মাধ্যমেই একটি নির্বাচিত সরকার নিরাপত্তা দিতে সক্ষম।


আরও পড়ুন