ভারতের সামরিক নিয়োগে বড় ধরনের সংস্কারের ঘোষণা

প্রতিরক্ষা নীতিতে বড় ধরনের সংস্কারের ঘোষণা দিয়েছে ভারত। অগ্নিপথ নামের নতুন একটি প্রকল্পের আওতায় এটি কার্যকর হবে। এর আওতায় ভারতের সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীতে একযোগে নিয়োগ দেওয়া হবে। এর অধীনে নিয়োগপ্রাপ্ত সেনাদের বলা হবে অগ্নিবীর। অবিলম্বে এই প্রকল্প কার্যকর হবে বলে দেশটির সরকারের তরফে জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

যুগান্তকারী এই প্রকল্পের সূচনাকালে উপস্থিত ছিলেন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং দেশটির তিন বাহিনীর প্রধানরা।

সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ভারতীয় প্রতিরক্ষার তিনটি বাহিনীতে নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি নতুন যুগের সূচনা হলো। মূলত এটি সরকার কর্তৃক প্রবর্তিত প্রতিরক্ষা নীতির সংস্কার। যা অবিলম্বে কার্যকর হচ্ছে।’

সপ্তাহ দুয়েক আগেই সশস্ত্র বাহিনীতে নিয়োগের নতুন প্রকল্পের কথা ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছিলেন তিন বাহিনী প্রধান। সেই প্রস্তাব মঙ্গলবার নিরাপত্তা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি অনুমোদন করেছে।

অগ্নিপথ প্রকল্পে মাত্র চার বছরের জন্য সৈনিক নিয়োগ দেওয়া হবে। আগামী ৯০ দিনের মধ্যে এই নিয়োগ শুরু হবে। নিয়োগপ্রাপ্তদের মাসিক বেতন হবে ৩০ থেকে ৪০ হাজার রুপি। অন্যান্য ভাতাও দেওয়া হবে।

নন-ব়্যাংকিং অফিসার হিসেবে কাজ করবেন তারা। মেয়াদ শেষের পরে মিলবে অবসরকালীন পেনশনও। সাড়ে ১৭ বছর থেকে ২১ বছর বয়সীরা এই প্রকল্পের অধীনে কাজ করার সুযোগ পাবেন।

অগ্নিপথ প্রকল্পে মোট ৪৫ হাজার ভারতীয় যোগ দিতে পারবেন। এর মধ্যে ২৫ শতাংশ স্থায়ী কমিশনের অধীনে আরও ১৫ বছর কাজ চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি পাবেন। চার বছর কাজের মেয়াদের মধ্যে প্রথম ৬ মাস প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

অগ্নিপথ প্রকল্পের অধীনে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে নিয়োগ শুরু হবে। এই প্রকল্পে নিয়োগ যারা রেগুলার ক্যাডারে জায়গা পাবেন না তাদের কাজ শেষে এককালীন ১১ থেকে ১২ লাখ টাকার প্যাকেজ দেওয়া হবে।

এই নতুন কাঠামোটি বিদ্যমান কাঠামোর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে বলে আশঙ্কা জানিয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত বহু সেনা অফিসার। তবে মোদি সরকারের যুক্তি, এই প্রকল্পে নিয়োগের মাধ্যমে ভারতীয় প্রতিরক্ষা বাহিনীর সবপর্যায়ে তরুণদের ভূমিকা বাড়বে।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর ভাষায়, ‘এতে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে। চার বছরের চাকরিতে অর্জিত দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার কারণে এ ধরনের সেনারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে চাকরি পাবেন। এতে অর্থনীতির বিকাশ ঘটবে। সামগ্রিক জিডিপি বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।’

ভারতের সামরিক বাহিনীতে বর্তমানে গড় বয়স ৩২ বছর। ছয় থেকে সাত বছরের মধ্যে এটি ২৬-এ নেমে আসবে বলে আশা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।


আরও পড়ুন