পাকুন্দিয়ায় সেপটিক ট্যাংক থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী-দেবর আটক

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় সেপটিক ট্যাংক থেকে রাশিদা খাতুন (৩৫) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে উপজেলার সুখিয়া বাজার সংলগ্ন এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী ও দেবরকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত গৃহবধূ রাশিদা জেলার সদর উপজেলার আবদুল মোতালিবের মেয়ে।

আটক গৃহবধূর স্বামী মাসুদ মিয়া (৪০) ও দেবর সোহেল মিয়া (৩৭) উপজেলার সুখিয়া গ্রামের বাসিন্দা। সোহেল সুখিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর বাবা আবদুল মোতালিব বাদী হয়ে স্বামী ও দেবরকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সারোয়ার জাহান মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রায় ২০ বছর আগে সুখিয়া এলাকার মাসুদের সঙ্গে বিয়ে হয় রাশিদার। তাদের সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে তার স্বামী ও দেবর যৌতুকের জন্য নানাভাবে নির্যাতন করতো। টাকা এনে দিলে সে টাকা দিয়ে জুয়া খেলতো মাসুদ। এ নিয়ে পরিবারের মাঝে ঝামেলা লেগেই থাকতো।

শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার পর যেকোনো সময় রাশিদাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে রাখে মাসুদ ও তার ভাই সোহেল। খবর পেয়ে শনিবার দুপুরের দিকে পুলিশ গিয়ে সেপটিক ট্যাঙ্কের ভেতর থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।


আরও পড়ুন