করিমগঞ্জ - July 2, 2022

করিমগঞ্জে শিক্ষক হত্যা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে উদীচীর বিক্ষোভ সমাবেশ

সারাদেশের অব্যহত শিক্ষক নির্যাতন, হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী করিমগঞ্জ উপজেলা শাখা।

২ জুলাই শনিবার বিকেলে করিমগঞ্জ প্রেসক্লাব চত্বরে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী করিমগঞ্জ উপজেলা শাখার আয়োজনে এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী করিমগঞ্জ উপজেলা শাখা সংসদের সভাপতি ধ্রুব সরকারের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কিশোরগঞ্জ জেলা সিপিবির সাবেক সভাপতি ও করিমগঞ্জ উপজেলা সিপিবির সভাপতি ডাঃ এনামুল হক ইদ্রিস, ন্যামতপুর স্কুল এন্ড কলেজ এর অধ্যক্ষ শামসুল ইসলাম, করিমগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কবির উদ্দিন মিল্কী, করিমগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান আকন্দ, উপজেলা শিল্পকলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী করিমগঞ্জ উপজেলা শাখা সংসদের সাধারণ সম্পাদক সুরজিত সরকার মানিক প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা সাভারের আশুলিয়ায় শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যা, নড়াইলে কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতন ও কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে জঙ্গলবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের চার শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন-১, শাহনাজ পারভীন-২ লাভলী রাণি পাল ও তানিয়া ছিদ্দিকীকে বখাটের দ্বারা হেনস্তার ঘটনাসহ সম্প্রতি সারাদেশে ঘটে যাওয়া অব্যহত শিক্ষক নির্যাতন, হামলা ও হত্যার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়।

পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কবির উদ্দিন মিল্কী বলেন, ছাত্রের হাতে শিক্ষক হত্যার ঘটনা আমাদের সমাজের অবক্ষয়কে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়। এই ঘটনার আড়ালে কারো মদদ আছে কি না সেটি খতিয়ে দেখতে হবে। এছাড়া নড়াইলে পুলিশের সামনে শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনায় দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

করিমগঞ্জ উপজেলা সিপিবির সভাপতি ডাঃ এনামুল হক ইদ্রিস বলেন, ধারাবাহিকভাবে হিন্দু শিক্ষকদের ওপর এভাবে আক্রমণ ও হয়রানি দেশের হিন্দু জনগোষ্ঠি ও শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে বিজ্ঞানমুখী শিক্ষা তুলে ফেলে মৌলবাদীদের কথামতো মৌলবাদকে সম্পৃক্ত করাই আজকের এই অবস্থার অন্যতম কারণ। সর্বক্ষেত্রে সাম্প্রদায়িকতার লালন ও আগ্রাসন রুখতে না পারলে সমাজে বিষবাস্পের মতো ছড়িয়ে পরবে হিংসা ও সাম্প্রদায়িক ঘৃণা।

সভায় বক্তারা বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে শিক্ষককে যেভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে, তাতে মনে হয়েছে দেশে কোন আইনের শাসন নেই। যাদের উপর ছিল আইন বাস্তবায়নের ভার, তাদের উপস্থিতিতেই শিক্ষককে নির্যাতন করা হয়েছে যা শুধু নিন্দাজনকই নয়, তাদেরও বিচারের আওতায় আনা উচিত।


আরও পড়ুন