কিশোরগঞ্জে ৪৩৯ মণ্ডপে হবে দুর্গাপূজা

কিশোরগঞ্জের মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে সনাতন ধর্মাবলম্বী হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপনের প্রস্তুতি। এবার জেলার ১৩ উপজেলায় ৪৩৯ মণ্ডপে দুর্গাপূজা হবে।

শান্তিপূর্ণভাবে সাড়ম্বরে এ উৎসব উদযাপনের প্রত্যাশা পূজারি ও পূজা উদযাপন কমিটির। এ জেলার উজান ও হাওড় এলাকার জন্য পৃথকভাবে জলে-স্থলে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন পুলিশ সুপার।

হিন্দু শাস্ত্রমতে অপশক্তি অসুর বিনাশী মহাশক্তির উৎস দেবী দুর্গতিনাশিনী দুর্গা। আর এ কারণে অসংখ্য পূজা-অর্চনার মধ্যে সনাতন ধর্মাবলম্বী হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন সাড়ম্বরে এ পূজাটি উদযাপন করে থাকেন।

পুরোহিতদের মতে, দুর্গতিনাশিনী দুর্গা দেবী এবার গজে চড়ে আসবেন এবং নৌকায় চড়ে বিদায় নেবেন।

এ পূজার আয়োজনে ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্রের আওয়াজ, সুরের মূর্ছনা এবং আরতিসহ প্রাণবন্ত উৎসবমুখর আয়োজন ছাড়াও প্রতিযোগিতা চলে মনের মতো করে প্রতিমা এবং মণ্ডপ সাজানোর।

কিশোরগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র চন্দ্র ভৌমিক দোলন জানান, এবার কিশোরগঞ্জ জেলার উজান ও হাওড়ের ১৩ উপজেলায় ৪২৭টি পূজা মণ্ডপে সার্বজনীন এবং ১২টি পারিবারিক মণ্ডপে পূজা উদযাপন করা হবে। সব ধর্ম ও বর্ণের লোকজনের সহযোগিতায় বরাবরের মতো এবারো সাড়ম্বরে পূজা উদযাপনের শত বছরের সামাজিক সম্প্রীতির ঐতিহ্যের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শেখ রাসেল জানিয়েছেন, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী এবার অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা হিসেবে মন্দিরে মন্দিরে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হচ্ছে। এছাড়া জেলার উজান ও হাওড়ের ১৩টি উপজেলার ভৌগোলিক অবস্থান মাথায় রেখে দ্রুতগামী নৌযান ও মোটরযান সুবিধাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।


আরও পড়ুন