মাংসের চাহিদা পূরণে বাংলাদেশ ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রতিবেশী দেশ ভারতের ওপর কমবেশি নির্ভরশীল ছিল। তবে ভারত থেকে গরু আসা বন্ধ হওয়ার পর বদলে গেছে সেই অবস্থা। বাংলাদেশ এখন মাংসে স্বয়ংসম্পূর্ণ। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। দেশের মাথাপিছু মাংসের চাহিদা দৈনিক ১২০ গ্রাম হলেও বর্তমানে উৎপাদন হচ্ছে ১৪৭ গ্রাম।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের হিসাবমতে, গেল অর্থবছরে পশুর উৎপাদন আগের অর্থবছরের চেয়ে ৩ লাখ ৯৯ হাজার বেড়ে হয়েছে ৫ কোটি ৬৩ লাখ ২৮ হাজার। এর মধ্যে ৪৪ শতাংশ গরু, ৪৫ শতাংশ ছাগল। বাকিগুলো মহিষ ও ভেড়া। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ২০১৭ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া- সব মিলিয়ে গবাদিপশু উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ১২তম।

কিন্তু হতাশার ব্যাপার হলো,গরুর মাংসের দাম দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশেই সর্বোচ্চ। যে দেশে খামার নিয়ে এত ভালো ভালো খবর, মাংস উৎপাদনে যে দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ, সে দেশে গরুর মাংস বাজারে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা। সেই মাংসই পাকিস্তানে ৩৭৫, নেপালে ৪৬৫, শ্রীলংকায় ৫৪৫ ও ভারতে ৫৮০ টাকা। অথচ ১ কেজি মাংসের উৎপাদন খরচ সর্বোচ্চ ৩৫০ টাকা,বলছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

এ অবস্থায় মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে চলে গেছে গরুর মাংসের দাম। আর নিম্নবিত্তের জন্য তা এখন দুঃস্বপ্ন।

মাংস ব্যবসায়ী সমিতি বলছে, হাট কর্তৃপক্ষ তাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ইজারা আদায় করছে। তাদের দাবী,এ ইজারা কমানো গেলে মাংসের দামও কেজিতে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা কমানো যাবে।

অপর দিকে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন বলছে, বাজারে গোখাদ্যের দাম ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। এতে বেড়ে গেছে গরুর উৎপাদন খরচ। সরকার গোখাদ্যের দাম কমানোর উদ্যোগ নিলে বাজারে মাংসের দাম কমে আসবে। এর বাইরে রয়েছে পশুর ওষুধের মূল্যবৃদ্ধি, চামড়ার দাম কমে যাওয়া, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের পরিবহন খরচ বৃদ্ধি। প্রকৃতপক্ষে খামারির কাছ থেকে কসাই পর্যন্ত একটি গরু পৌঁছাতে তিন-চার হাত বদল হয়। প্রতি হাত বদলে বাড়ে গরুর দাম।

এ অবস্থায় খামাড়ি ও ক্রেতাদের মাঝে মধ্যস্বত্বভোগীরা একটা বিশাল ব্যবধান তৈরি করছে। এখনই বাজার নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে অর্জনের সুফল ভোক্তা পাবে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

তাই বাজার ব্যবস্থাপনা ঢেলে সাজানোর কথা ভাবছে সরকার। তাতে গরুর মাংসের দাম আরো কমানো সম্ভব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলঃ MKN Bangla

ভিডিও লিংকঃ বাংলাদেশে ৩৫০ টাকার গরুর মাংস ৭০০ টাকা কেন? (ভিডিও)

Previous articleসাজেদা চৌধুরীর আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জয়ী
Next articleসাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত শেষ না হওয়ার কারণ জানাল র‍্যাব
মিজবাহ উদ্দিন আহমদ (নিঝুম)। জন্ম কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে। সেখানেই বেড়ে উঠেছেন তিনি। কিশোরগঞ্জ সরকারি গুরুদয়াল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স, রাজধানী ঢাকার সার্ক ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি থেকে মেডিকেল টেকনোলজিতে ডিপ্লোমা এবং পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিএসসি ইন হেলথ টেকনোলজিতে অধ্যয়ন করছেন। রাজনীতি ও লেখালেখির প্রতি প্রবল আগ্রহ থেকেই ২০০৬ সালে যুক্ত হন সাংবাদিকতায়। সাংবাদিকতা জীবনে ২০১৫ সালের ২৬শে মার্চ প্রতিষ্ঠা করেন জনপ্রিয় জাতীয় অনলাইন সংবাদপত্র মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ডটকম (http://muktijoddharkantho.com/)। নিজ হাতে গড়া এ পত্রিকায় তিনি ২০১৭ সাল পর্যন্ত বার্তা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন এবং পরবর্তীতে নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব নিয়ে আজ অবদি অত্যন্ত নিষ্ঠা ও সাহসীকতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এছাড়াও ব্যক্তিগত জীবনে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (করোনা যোদ্ধা) হিসেবে কর্মরত আছেন। সেখানেও করোনা যুদ্ধের সময় বিচক্ষণতা ও সাহসীকতার জন্য তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বমহলে জনপ্রিয়। ফেইসবুক প্রোফাইল : https://web.facebook.com/nizum88/